• সমগ্র বাংলা

কালিয়াকৈরে ইঞ্জিন ও বগি লাইনচ্যুত ১১ঘন্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ

  • সমগ্র বাংলা
  • ২৮ মে, ২০২২ ২০:২২:০৯

ছবিঃ সিএনআই

কালিয়াকৈর (গাজীপুর)প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের কালিয়াকৈর মৌচাক রেলওয়ে স্টেশনের আউটার সিগনাল ক্রসিংয়ে শুক্রবার রাতে পঞ্চগড় এক্সপ্রেস ট্রেনের ইঞ্জিনসহ দুটি বগি লাইনচ্যু হয়। এতে ১১ ঘন্টা ঢাকার সঙ্গে উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের সব ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে। রিলিফ ট্রেন এসে উদ্ধার করার পর শনিবার সকাল সাড়ে নয়টায় ঢাকার সঙ্গে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

ট্রেনের যাত্রী, রেলপুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পঞ্চগড় থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ৭৯৩ নং আন্তঃনগর পঞ্চগড় এক্সপ্রেস আপ ট্রেনটি শুক্রবার রাত ১০টার কিছু সময় আগে মৌচাক স্টেশনের ১ নং লাইন দিয়ে পার হয়। এর কিছু সময় পরই আউটার সিগনাল ক্রসিংয়ে ট্রেনটির ইঞ্জিনসহ দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়। এতে কুড়িগ্রামগামী ‘কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস’ জয়দেবপুর স্টেশনে, ঢাকাগামী ‘জামালপুর এক্সপ্রেস’ মির্জাপুর স্টেশনে দাঁড়িয়ে পড়ে। এ দুর্ঘটনার ফলে ঢাকা-রাজশাহী ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলগামী সকল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দিনাজপুর থেকে আসা শোভন শ্রেণীর ট্রেন যাত্রী হামিদুর আলম জানান, একই সময় ঢাকা থেকে পঞ্চগড়গামী ৭৫৮ নং আন্তঃনগর  দ্রুতযান এক্সপ্রেস ডাউন ট্রেনটি ২ নং লাইন দিয়ে মৌচাক স্টেশন পার হয়। একই স্টেশনে দুইটি ট্রেনের ক্রসিংয়ের কারণে এক নং লাইনের ট্রেনটির গতি কম ছিল। ফলে ভয়াবহ দুর্ঘটনার হাত থেকে ট্রেনটি রক্ষা পায়। তবে ট্রেনের যাত্রীরা  কঠিন দূর্ভোগের মধ্যে রাত কাটায়। শনিবার ভোরে অনেক যাত্রী ট্রেন থেকে নেমে বাসযোগে ঢাকার দিকে চলে যায়। জয়দেবপুর রেলওয়ে স্টেশন পুলিশ ফাঁড়ির সাব ইন্সপেক্টর ইমরান হোসেন জানান, যাত্রীদের দুর্ভোগ কমাতে রেল পুলিশের পক্ষ থেকে আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি এবং পাশাপাশি যাত্রীদের নিরাপত্তার ব্যবস্থাও নিশ্চিত করা হয়েছে।

জয়দেবপুর রেলওয়ে জংশনের স্টেশন মাস্টার রেজাউল ইসলাম বলেন, রাত ২টার দিকে ঢাকা থেকে রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ শুরু করে। সকাল ৭টায় ইঞ্জিন উদ্ধারের কাজ শেষ হয়। সাড়ে আটটার দিকে অপর দুইটি বগি উদ্ধার হয়। পরে সকাল সাড়ে ৯টায় ট্রেন চলাচল শুরু হয়।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ের ব্যবস্থাপক মো. শাহীদুল ইসলাম বলেন, পঞ্চগড় এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত হওয়ার খবর পাওয়ার পর ঢাকা ডিভিশন থেকে রিলিফ ট্রেন গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। শনিবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। পাশাপাশি দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে কমিটিতে সদস্য হিসেবে কারা আছেন তাৎক্ষণিকভাবে তিনি জানাতে পারেননি।

মন্তব্য ( ০)





  • company_logo